Saturday, June 15, 2024
spot_img
spot_img
Homeখবরভারতের চেন্নাই যাওয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় ট্রেন করমণ্ডল এক্সপ্রেস দুর্ঘটনা, মৃত্যু 50, আহত...

ভারতের চেন্নাই যাওয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় ট্রেন করমণ্ডল এক্সপ্রেস দুর্ঘটনা, মৃত্যু 50, আহত 79।

মালগাড়ির সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ করমণ্ডল এক্সপ্রেসের, মৃত কমপক্ষে ৫০ জন, ওড়িশার বালেশ্বরের কাছে দুর্ঘটনায় চেন্নাইগামী করমণ্ডল এক্সপ্রেস। ট্রেনটির একাধিক কামরা বেলাইন হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে। অন্তত ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে। ১৭৯ জনকে বালেশ্বরের হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে বলে রেল সূত্রে জানা যাচ্ছে।জানা গিয়েছে, দুপুর ৩টে ১৫ মিনিট নাগাদ শালিমার স্টেশন থেকে ছাড়ে ১২৮৪১ আপ করমণ্ডল এক্সপ্রেস। পশ্চিম মেদিনীপুরের খড়্গপুর স্টেশন ছাড়ে বিকেল সওয়া ৫টায়। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা নাগাদ ট্রেনটি পৌঁছয় বালেশ্বরে। কাছেই বাহানগা বাজারের কাছে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে ২৩ কামরার ট্রেনটি। ঘটনাটি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। তিনি ট্যুইটে লিখেছেন, ‘শালিমার-করমন্ডল এক্সপ্রেস লাইনচ্যুত হওয়ার ঘটনায় আশঙ্কিত। বাংলা থেকে বহু যাত্রী রয়েছেন ওই ট্রেনে। আমাদের রাজ্যের বেশ কিছু বাসিন্দা জখম হয়েছেন। ওড়িশা সরকারের সঙ্গে এবং দক্ষিণ পূর্ব রেলওয়ের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ করছি।’ আপৎকালীন কন্ট্রোল রুম চালু করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। 033- 22143526/ 22535185-এই দুটি নম্বর চালু করা হয়েছে।ঘটনায় প্রতিনিধি দল পাঠাচ্ছে রাজ্য। মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী জানিয়েছেন, “মানস ভুঁইয়া, দোলা সেন এবং আরও কয়েকজন আধিকারিক ইতিমধ্যেই বালাসোরের উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে গিয়েছেন। পশ্চিম মেদিনীপুর থেকে অ্যাম্বুল্যান্স রওনা হয়েছে। ওই এলাকার যাবতীয় মেডিক্যাল কলেজ এবং হাসপাতালকে অ্যালার্ট করা হয়েছে। পাশাপাশি এরাজ্যের মেডিক্যাল কলেজকেও প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে।” স্বাস্থ্য ক্ষেত্র, উদ্ধারকাজে আর যা যা সাহায্য লাগবে তা করা হবে বলে ওড়িশা সরকারকে জানানো হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফে। ভারতে ঘটল ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনা, পশ্চিমবঙ্গের হাওড়ার শালিমার-চেন্নাই করমণ্ডল এক্সপ্রেস দুর্ঘটনার কবলে পড়ল ২রা জুন শুক্রবার বিকেলে। ওড়িশার বালেশ্বরে বাহানাকা স্টেশনের কাছে একটি মালগাড়ির সঙ্গে সংঘর্ষের ফলে সম্পূর্ণ উল্টে যায় চেন্নাইগামী ট্রেনটির একাধিক কামরা। তিনটি কামরা একেবারে দুমড়ে-মুচড়ে গিয়েছে। হতাহতের সংখ্যা নিয়ে এখনও স্পষ্ট ধারণা করা যাচ্ছে না। তবে আহত ও নিহতের সংখ্যা বহু বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে। রেলের তরফে উদ্ধারকারী দল পাঠানো হয়েছে। খবর দেওয়া হয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীকেও।পূর্ব ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা থেকে দক্ষিণ ভারতের চেন্নাই যাওয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় ট্রেন করমণ্ডল এক্সপ্রেস। চেন্নাই তথা দক্ষিণ ভারত যাওয়ার জন্য কলকাতা তথা পূর্ব ভারতের যাত্রীদের এক বিরাট ভরসার জায়গা এই ট্রেন। চিকিৎসার জন্যও অনেকে এই ট্রেনটিতে যান। বস্তুত, চিন্তা বাড়াচ্ছে এই বিষয়টাই। পশ্চিমবঙ্গ শুধু নয়, আসাম, বিহার, এমনকি বাংলাদেশেরও বহু অসুস্থ মানুষ করমণ্ডলে দক্ষিণ ভারতে যান চিকিৎসা করাতে। তুমুল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বাতানুকূল কামরাগুলো। ঠিক কী কারণে মালগাড়ির সঙ্গে একেবারে মুখোমুখি সংঘর্ষ হল, তা এখনও স্পষ্ট নয়। যা জানা যাচ্ছে, দুটো ট্রেন একইসঙ্গে একই লাইনে মুখোমুখি চলে আসে।দক্ষিণ পূর্ব রেলের অন্যতম ‘সুপারফাস্ট’ এই ট্রেনের সামনের কামরাগুলো স্রেফ গতির অভিঘাতেই একেবারে দুমড়ে-মুচড়ে যায়। সংবাদ সূত্রে জানা যাচ্ছে, পিছনের তিনটি মাত্র কামরা বাদে বাকি পুরো ট্রেনটাই লাইনচ্যুত হয়ে চারদিকে ছিটকে যায়। দীর্ঘদিন অবধি হাওড়া থেকে ছাড়ত করমণ্ডল এক্সপ্রেস। চেন্নাই মেলের চাইতে অনেকটাই বেশি দ্রুতগামী করমণ্ডলে জায়গার চাহিদা বরাবরই অত্যন্ত বেশি। ওই লাইনে বেশি ট্রেন না থাকায় ‘স্লিপার’ কামরাতে নির্ধারিত যাত্রীদের চাইতেও অনেক বেশি যাত্রী উঠে থাকেন। সম্প্রতি হাওড়ার ‘ট্র্যাফিক’ কমাতে করমণ্ডল এক্সপ্রেসকে শালিমারে সরিয়ে নিয়ে যায় দক্ষিণ পূর্ব রেল। দুপুর ৩.২০ মিনিটে শালিমার থেকে প্রতিদিন ছাড়ে এই ট্রেন। বিকেল ৫.১৫-তে খড়্গপুর ছাড়ানোর পর সাড়ে ছ’টা নাগাদ বালেশ্বরে ঢোকার কথা করমণ্ডলের। তার আগেই কার্যত ভয়াবহ দুর্ঘটনার কবলে পড়ে করমণ্ডল। সংঘর্ষে মালগাড়িটিরও একাধিক বগি ছিটকে যায় লাইন থেকে। দক্ষিণ পূর্ব রেল সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই খড়্গপুর থেকে রওনা দিয়েছে দক্ষিণ পূর্ব রেলের উদ্ধারকারী দল। আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। হতাহতের সংখ্যা নিয়ে এখনও স্পষ্ট কোনও তথ্য দিতে পারেনি রেল। সম্প্রতি করমণ্ডল এক্সপ্রেসের জন্য অত্যাধুনিক ‘লিঙ্ক-হফম্যান-বুশ’ প্রযুক্তির রেক আনা হয়েছিল পাঞ্জাবের কাপুরথালা থেকে। জার্মান প্রযুক্তিতে তৈরি স্টেনলেস স্টিলের এই রেক দুর্ঘটনা সামলাতে অনেক বেশি সক্ষম। এই রেকের বৈশিষ্ট্য, এটি বেলাইন হলেও উল্টে যায় না। কিন্তু আজকের ধাক্কার অভিঘাত এতটাই বেশি ছিল যে, ২৩-টি কামরার মধ্যে ২০ টি কামরাই একেবারে উল্টে যায়। একাধিক কামরা উঠে গিয়েছে মালগাড়ির ওপর। চূড়ান্ত ক্ষতিগ্রস্থ ট্রেনের প্যান্ট্রি কার। মালগাড়ির ওপরে উঠে গিয়েছে করমণ্ডলের ইঞ্জিনটিও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments